শুক্রবার | ১লা জুলাই, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ১৭ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



সত্যের পথে অবিচল | ২৪ ঘণ্টা বাংলা সংবাদ

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে খেজুরের রস সংগ্রহের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত

মোঃ রুমন বিশ্বাস

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে খেজুরের রস সংগ্রহের প্রস্তুতিতে ব্যস্ত

প্রকৃতিতে বইছে শীতের আগমনী বার্তা। শীত আর পিঠা যেন সমার্থক। আর শীতের পিঠায় অন্যতম অনুষঙ্গ খেজুরের গুড়। এ গুড় পাওয়া যায় খেজুরের রস থেকে। শীতের আগমনী বার্তায় খেজুর গাছের রস সংগ্রহের প্রস্তুতি চলছে কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বেশ কিছু গ্রামে গাছিদের মাঝে। গাছিরা খেজুর গাছ কাটা-ঝোড়ায় ব্যস্ত সময় পার করছেন। শীত কিছুটা বাড়লেই শুরু হবে রস সংগ্রহ। তৈরি হবে খেজুরের গুড়।


কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার বেশিরভাগ গ্রামের পথ দিয়ে হেটে গেলে চোখে পড়ে খেজুর গাছ। জমির আঁইলে আঁইলে খেজুর গাছ লাগিয়েছেন গ্রামের কৃষকরা। বিশেষ করে গাড়াবাড়িয়া, বেলগাছি, সরোজগঞ্জ, মহাম্মদজমা, বোয়ালিয়া এবং দামুড়হুদার জয়রামপুর, দোস্ত প্রভৃতি গ্রামে খেজুরের গাছ বেশি চোখে পড়ে। শীত মৌসুমে এসব গ্রামে খেজুরের রস বিক্রি ও গুড় তৈরির কাজ চলে পুরো দমে। এখন চলছে তারই প্রস্তুতি।

দৌলতপুর উপজেলার শরিসাডুলি গ্রামের গাছি আক্কাস আলী জানান, শীতের শুরুতেই খেজুর গাছ ঝুড়ে-কেটে রস সংগ্রহের জন্য প্রস্তুত করা হয়। এরপর দেয়া হয় চাচ। পরে নলি মারার মাধ্যমে শুরু হয় রস সংগ্রহ। খেজুরের সুস্বাদু রস জালিয়ে তৈরি হয় খেজুরের গুড় ও পাটালি।

দৌলতপুর উপজেলার বিলবোয়ালিয়া গ্রামের কৃষক কালু মিয়া জানান, সাধারণত চাষীরা অন্য চাষের পাশাপাশি খেজুর গাছ লালন-পালন করে। একজন চাষীর ৫০-৬০ খেজুর গাছ থাকলে মৌসুমে তাদের দৈনিক আয় হয় এক থেকে দুই হাজার টাকা। বছরের নভেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চলে খেজুর গুড়ের মৌসুম। এসময়ে তারা মোট অংকের বাড়তি আয় করে থাকেন।


শ্যামপুর গ্রামের কামাল আলীর খেজুর গাছ আছে ৪০ টি। একই গ্রামের নাজমুল আলীর গাছ রয়েছে ৪৫ টি। রস সংগ্রহের জন্য তারা এখন খেজুর গাছের আগা ঝোড়া, চাচ দেয়া ও নলি মারায় ব্যস্ত। তাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, কারো যদি ১০/১২টি খেজুর গাছ থাকে, তা থেকে প্রতিদিন এক ভাড় গুড় পাওয়া যাবে।

খেজুর গুড়ের মৌসুমে বাড়তি কাজ জোটে গাছ প্রস্তুত করার কাজে নিয়োজিতদের। তাদেরই মধ্যে গ্রামের একজন মিরাজুল ইসলাম। তিনি জানান, মৌসুম এলে তিনি দিনে অন্তত ৫০/৬০টা গাছ কাটা-ঝোড়া করে থাকেন। এতে তার দৈনিক আয় হয় প্রায় দেড় হাজার টাকা।


পিঠা-পুলির অন্যতম উপকরণ খেজুরের গুড়। এ গুড় তৈরি হয় খেজুরের রস থেকে। তাই শীতের শুরুতেই গাছিরা খেজুর গাছ প্রস্তুত করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন শীতের মৌসুমে খেজুরের গুড় ও পাটালি বিক্রি করে বাড়তি আয় করেন চাষীরা।

Facebook Comments Box

Posted ৩:৫৪ অপরাহ্ণ | বুধবার, ১৮ নভেম্বর ২০২০

protidinerkushtia.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

মোঃ শামীম আসরাফ, সম্পাদক ও প্রকাশক
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় :

ঝাউদিয়া বাবলু বাজার, দৌলতপুর, কুষ্টিয়া ফোনঃ +৮৮ ০১৭৬৩-৮৪৩৫৮৮ ই-মেইল: protidinarkushtia@gmail.com

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
error: Content is protected !!