বৃহস্পতিবার | ১১ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২৭শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ



সত্যের পথে অবিচল | ২৪ ঘণ্টা বাংলা সংবাদ

দৌলতপুর উপজেলার ভাদালিয়া গ্রামের রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই!

দৌলতপুর উপজেলার ভাদালিয়া গ্রামের রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই!

ভাদালিয়া গ্রামের রাস্তার বেহাল দশা, দেখার কেউ নেই।

দৌলতপুর উপজেলার রিফাইতপুর ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড ভাদালিয়া পাড়া গ্রাম। গ্রামে প্রায় ২ হাজার মানুষের বসবাস।


ওই ৫নং ওয়ার্ডের আলমমোড় থেকে তাহেরমোড় পর্যন্ত দুই কিলোমিটার রাস্তায় গ্রীষ্মকাল ও বর্ষাকালে সামান্য বৃষ্টি হলেই এক হাঁটু কাদা জমে। তখন যানবাহন তো দূরের কথা, হেঁটে চলাচলও বিপজ্জনক হয়ে পড়ে।


আশপাশের সব রাস্তা পাকা হলেও এ রাস্তাটি পাকা করার কোনো উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে না। নির্বাচন এলে রাজনৈতিক নেতারা রাস্তাটি পাকা করার প্রতিশ্রুতি দিলেও পরে আর পাকা করার উদ্যোগ নেয়া হয় না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন এলাকবাসী।


ভাদালিয়া গ্রামের আব্দুর রাজ্জাক নামের এক ব্যক্তি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এমপি থেকে শুরু করে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কেউ বাকি নেই যে আমরা তাদের কাছে যাইনি। এলাকার এনামুল হক, শামীম রেজা, সাইফুল ইসলাম, শিপন আলী, মুরুব্বিসহ অসংখ্য মানুষ জনপ্রতিনিধিদের কাছে বার বার ধরণা দিয়ে শুধু প্রতিশ্রুতিই পেয়েছি। দৌলতপুর উপজেলায় এরকম রাস্তা কোনোভাবেই মেনে নেয়া যায় না।

ক্ষুব্ধ হয়ে এনামূল এ প্রতিবেদককে বলেন, আমাদের প্রাণের দাবি এই রাস্তাটি করে না দিলে দৌলতপুর উপজেলা থেকে আমাদেরকে বের করে দেওয়া হোক।

সাইফুল ইসলাম জানান, খুবই দুঃখের সঙ্গে বলতে হয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে কয়েকবার অবগত করা হলেও কোনো সাড়া পাইনি। করে দেয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। তাছাড়া গত দুই বছর আগে সাবেক এমপি মহোদয় আমাদের এ রাস্তাটি আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হলেও এখনও পর্যন্ত রাস্তাটি হচ্ছে না।

শামীম রেজা জানান, খুব খারাপ লাগে যখন দেখি ছোট ছোট কোমলমতি বাচ্চারা কাদামাটি মেখে স্কুলে আসছে। অনেক গ্রীষ্ম-বর্ষা মৌসুমে অনেক শিক্ষার্থী স্কুলেই আসতে পারেনা। রাস্তাটি দ্রুত পাকাকরণের দাবি জানান তিনি।

এই রাস্তাটির কথা আমি বারবার তুলে ধরেছি। বৈশাখ মাসে ট্রলি দিয়ে ধান আনা নেয়ার সময় রাস্তাটির দশা বেহাল হয়ে যায়। শুনেছি এমপি মহোদয়ও এলাকবাসীকে বার বার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এ রাস্তাটিই এ এলাকার ছাত্র-ছাত্রীদের যাতায়াতের একমাত্র পথ। গ্রীষ্মকাল এবং বর্ষাকালে শিক্ষার্থীদের কষ্টের সীমা থাকে না। এ রাস্তায় চলাচলের বাধা একটাই- এর বেহাল দশা। রাস্তাটি পাকা হলে এ এলাকার ২ হাজার মানুষের কষ্ট দূর হবে। একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের এবং এ অঞ্চলের মানুষের দিকে তাকিয়ে রাস্তাটি পাকা করার উদ্যোগ গ্রহণের জন্য কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন এলাকাবাসী।

Facebook Comments Box

Posted ৩:০৬ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ১৬ জুন ২০২১

protidinerkushtia.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

এ বিভাগের আরও খবর

মোঃ শামীম আসরাফ, সম্পাদক ও প্রকাশক
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় :

ঝাউদিয়া বাবলু বাজার, দৌলতপুর, কুষ্টিয়া ফোনঃ +৮৮ ০১৭৬৩-৮৪৩৫৮৮ ই-মেইল: protidinarkushtia@gmail.com

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ে নিবন্ধনের জন্য আবেদনকৃত
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি
error: Content is protected !!